Dr Zoha rearrange

Rearrange the following sentences to make a coherent order.

(i) At one point, Dr. Zoha was shot in the back at 11 in the morning and breathed his last at 4 pm.

(ii) They started taking up their positions against the students.

(iii) The students were preparing to violate section 144.

(iv) On February 17, Section 144 was imposed on Rajshahi City.

(v) On hearing this, Professor Zoha, a famous teacher of Rajshahi University rushed to the spot.

(vi) The armed forces were deployed in front of the university main gate.

(vii) The Ayub Khan Govt. killed Sergeant Zohurul Haque in prison on 15 February, 1969.

(viii) While he was requesting, the students doused a parked army jeep with kerosene and set it on fire.

(ix) He repeatedly requested the officers, “Please, don't open fire, my students will go back now.”

(x) So, a flame of protest spread throughout erstwhile East Pakistan.

Answer: vii + x + iv + iii + vi + ii + v + ix + viii + i.

👉The Ayub Khan Govt. killed Sergeant Zohurul Haque in prison on 15 February, 1969. So, a flame of protest spread throughout erstwhile East Pakistan. On February 17, Section 144 was imposed on Rajshahi City. The students were preparing to violate section 144. The armed forces were deployed in front of the university main gate. They started taking up their positions against the students. On hearing this, Professor Zoha, a famous teacher of Rajshahi University rushed to the spot. He repeatedly requested the officers, “Please, don't open fire, my students will go back now.” While he was requesting, the students doused a parked army jeep with kerosene and set it on fire. At one point, Dr. Zoha was shot in the back at 11 in the morning and breathed his last at 4 pm.

অনুবাদ: আইয়ুব খানের সরকার ১৯৬৯ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি কারাগারে সার্জেন্ট জহুরুল হককে হত্যা করে। তাই প্রতিবাদের ঝড় তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ে। ১৭ ফেব্রুয়ারি, রাজশাহী শহরে ১৪৪ ধারা জারি হয়। ছাত্ররা ১৪৪ দ্বারা ভাঙার প্রস্তুতি নিচ্ছিলো। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে সশস্ত্র বাহিনী মোতায়ন করা হয়। তাঁরা ছাত্রদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিলেন। এই কথা শুনে, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বিখ্যাত শিক্ষক অধ্যাপক জোহা, ঘটনাস্থলে ছুটে যান।

তিনি বারবার কর্মকর্তাদের অনুরোধ করছিলেন, “দয়া করে, গুলি কোরো না আমার ছাত্ররা এখনি ফিরে যাবে।” তিনি যখন অনুরোধ করছিলেন, ছাত্ররা তখন দাঁড়িয়ে থাকা একটি সেনাবাহিনীর গাড়িতে কেরোসিন দিয়ে আগুন ধরিয়ে দেয়। এক পর্যায়ে, সকাল ১১ টায় ড. জোহাকে পিছন থেকে গুলি করা হয় এবং বেলা ৪ টায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।
Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url